ফেসবুক প্রতারণা

| ফেব্রুয়ারী 2, 2014 | 0 Comments

লাইফ স্টাইল: সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম এখন ফেসবুক। বন্ধু খোঁজা আর বন্ধুত্ব বাড়ানোর বিস্তীর্ণ প্লাটফর্ম। এ বন্ধুত্বের সীমা স্থান, বয়স আর দেশের গণ্ডি মানে না। আর এ অসম বন্ধুত্বের বেড়াজালে আটকে অনেকে হচ্ছেন সর্বস্বান্ত। ঘর ভাঙছে, প্রতারিত হয়ে সম্মান হারাচ্ছেন। আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছেন। অনলাইন দুনিয়ায় প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে অনেক বিখ্যাত মানুষও নাস্তানাবুদ হচ্ছেন। লজ্জায় মুখ লুকাতে হচ্ছে আপনজনের কাছে। ভুতুড়ে-আজগুবি প্রতারকচক্র ভক্ত বা প্রেমিক সেজে ফেসবুকে বন্ধু হয়ে কেড়ে নিচ্ছে অর্থ-বিত্ত-চরিত্র সবই। ভুয়া আইডি খুলে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে প্রেমিকের সঙ্গে তোলা অন্তরঙ্গ ছবি, ভিডিও। প্রতারিত, ব্যর্থ ও হতাশ হয়ে আত্মহত্যায় মুক্তি খুঁজছে কেউ কেউ। ফেসবুকে ভুয়া আইডির মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন সেলিব্রিটি বা তারকারা। এজন্য সামাজিক অবক্ষয় আর অসচেতনতাকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। ফেসবুক বন্ধুর প্রেমে সব হারানো এমনি একজন হচ্ছেন রাজধানীর এক প্রকৌশলীর কন্যা লামিয়া নূর (১৯)। ঢাকা সিটি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের এ ছাত্রীর সঙ্গে ফেসবুকে প্রেম হয় ফয়সালের। কেউ কাউকে দেখেননি। তবুও প্রেমে পড়েছেন একে অপরের। পরে পরস্পরের সঙ্গে দেখা করেন। সম্পর্ক আরও গভীর হয়। লামিয়ার এক বান্ধবী জানান, আমাদের কাছে প্রায়ই ফয়সালের কথা বলতো সে। বলতো, ফয়সালকে না পেলে থাকতে পারবে না। তাদের সম্পর্ক ছিল গভীর। ওরা বিয়ে করার সিদ্ধান্তও নিয়েছিল। মাঝে মধ্যেই এসব নিয়ে ওদের ঝগড়া হতো। ফেসবুকে প্রেম হয়ে গভীর সম্পর্ক হলেও ফয়সাল তাকে বিয়ে করতে রাজি ছিল না। এমন অবস্থায়ই লামিয়া নূর আত্মহত্যা করেন গত মঙ্গলবার বিকালে। তবে ফয়সালকে এখনও শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। কলাবাগান থানার এসআই আজগর আলী জানান, প্রেমে ব্যর্থতার কারণেই লামিয়া আত্মহত্যা করেছে। এর প্রমাণ সে রেখে গেছে।

কিশোরগঞ্জের নবম শ্রেণীর ছাত্রী হাসি আক্তার জ্যোতি (১৪)। অকৃত্রিম বিশ্বাস নিয়ে সে দাঁড়িয়েছিল প্রেমিক সুস্মিত সুলতানের (২০) পাশে। প্রেমিকের প্রেমের ফাঁদ বুঝতেই পারেনি সে। ভালবেসে দেহ-মন সব উজাড় করে দিয়েছিল। কিন্তু প্রতারণার শিকার হয়ে তাসের ঘরের মতোই ভেঙে গেল সে স্বপ্ন। এ ঘটনায় ওই রাতেই গ্রেপ্তার করা হয় প্রেমিক সুস্মিত সুলতানকে। আদালতে দেয়া জবানবন্দি অনুসারে প্রেমিক সুলতান গত দু’বছর ধরে প্রেম করে স্কুলছাত্রীর সঙ্গে। তাদের অন্তরঙ্গতা গড়িয়েছিল শারীরিক সম্পর্ক পর্যন্ত। জ্যোতির সরলতার সুযোগ নিয়ে বিশেষ মুহূর্তের ছবি ধারণ করে রেখেছিল সুলতান। কিছুদিন ধরে সুলতানকে বিয়ের জন্য চাপাচাপি করছিল জ্যোতি। এতই সম্পর্কে অবনতি হয়। ওইসব ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে চলে হাসিকে ব্ল্যাকমেইল। এতে অস্বীকৃতি জানালে ‘সুস্মিত মিয়া’ নামে একটি ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে গোপনীয় সব ছবি পোস্ট করতে থাকে। এরপর লোকলজ্জা আর কলঙ্কের অপবাদ থেকে বাঁচতে গত সপ্তাহে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করে জ্যোতি।

এদিকে তারকা খ্যাতি আছে এমন ব্যক্তিদের নামে একাধিক ভুয়া আইডি ও পেইজ ফেসবুক খুললেই পাওয়া যাচ্ছে। তাদের নতুন ছবি, তথ্য, আসল নাম, জন্ম তারিখসহ প্রায় সবকিছুই সঠিক এবং আপটুডেট থাকে ভুয়া আইডিগুলোতে। যে আইডিগুলোর মাধ্যমে ওই তারকার ভক্তদের সঙ্গে নিয়মিত হাই-হ্যালোও রাখে ভুয়া আইডিচালকরা। সংগীত তারকার আইডি থেকে গান গাওয়ানোর প্রলোভন, টিভি তারকার আইডি থেকে অভিনয়ের প্রলোভন দেয়া হয় ভক্তদের। নারী তারকাদের ভুয়া আইডি থেকে টাকার বিনিময়ে শারীরিক সম্পর্কের অফার করারও অভিযোগ রয়েছে। বিভিন্ন অশ্লীল এবং কুরুচিপূর্ণ ছবি আপলোড করেও বিভিন্ন তারকার সম্মানহানি ঘটাচ্ছে এসব প্রতারক চক্র। এক বিখ্যাত কণ্ঠ তারকা জানান, মাস তিনেক আগের কথা। বিদেশ থেকে ভক্ত ফোন করে বলল, ভাইয়া আমার নাম শিহাব। আপনার ফেসবুক ফ্রেন্ড! আপনার অন্ধ ভক্ত। কিন্তু আমি ফেসবুক চালাতেই জানি না। শিহাব বলে, ভাইয়া আপনার একাউন্টে আপাতত ৫০ হাজার পাঠিয়েছি। পেয়েছেন? কিছুতো বললেন না, আমার অ্যালবামটা? ওই তারকা পরে বললেন, দেখেন ভাই- আপনি আপনার টাকা-পয়সা নিয়ে ফেসবুকের ওই লোকের সঙ্গে আলাপ করেন। এই তো সেদিন নিজের অ্যালবাম প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এক নারী তারকা বলেন, আমার একটা ফেসবুক একাউন্ট ছিল। মাঝে মধ্যে বসতাম। দু’দিন ধরে আমার একাউন্টটি আমি নিজেই খুলতে পারছি না। ওটা এখন অন্য কেউ চালাচ্ছে! তিক্ত অভিজ্ঞতা রয়েছে জনপ্রিয় টিভি অভিনেতা জাহিদ হাসানের। ফেসবুকে তার প্রায় ১৫০ একাউন্ট আছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই বেশ আপটুডেট। তারকার নাম করে এ ভুয়া প্রোফাইল দিয়ে কত না সর্বনাশা ঘটনা ঘটছে প্রতিদিন, তার ইয়ত্তা নেই। একাধিক মডেল ও অভিনেত্রী জানান, প্রায়ই পরিচিতজনরা বলেন সেদিন ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠালাম, সেদিন আপনার সঙ্গে অনেক কথা বললাম। আমি বোকা বনে যাই। কি করবো! ফেসবুকে একাউন্টই নেই। এক সিনিয়র অভিনেত্রী জানান, আমি ফেসবুক ব্যবহার করি না। কিন্তু আমার নামে অনেক আইডি আছে। তাতে অরুচিকর ছবি আপলোড করা হয়। এসব দেখে লোকে আমাকে অভিযোগ করে, কেন আমি এসব ছবি আপলোড করছি। এর একটা বিহিত করা উচিত। মডেল ও অভিনেত্রী মেহজাবিন, শখ, জয়া আহসান, অপূর্ব, প্রভাসহ অনেক গায়ক ও অভিনেতার নামে রয়েছে ফেইক আইডির মেলা। হৃদয় খান এ বিষয়ে ভক্তদের উদ্দেশে বলেন, নাম দেখেই অ্যাড হওয়ার জন্য ব্যাকুল হবেন না। খ্যাতির বিড়ম্বনায় আছেন মাহিয়া মাহি। মাহিয়া মাহির নাম ব্যবহার করে ভুয়া ১০-১২টি একাউন্ট খোলা হয়েছে, যার সঙ্গে তার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। তার ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, একটিমাত্রই একাউন্ট আছে তার। এছাড়া জাজ মাল্টিমিডিয়া থেকে তার অফিসিয়াল ফেনপেজ ও অফিসিয়াল ফ্যানক্লাবের দু’টো আইডি ব্যবহৃত হয়। এদিকে সামপ্রতিক সময়ে এ ধরনের সাইবার ক্রাইম বেড়ে যাওয়ার ঘটনায় উদ্বিগ্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থাও। এ বিষয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পৃথক বিভাগও কাজ করছে। জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান জানান, ফেসবুকে ফেইক আইডির মাধ্যমে কিছু প্রতারণার অভিযোগ আমরা পাই। এ অভিযোগ তদন্তের মাধ্যমে অনুসন্ধান করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়ে থাকে। কিছু দিন আগে আমরা কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করেছি। এ বিষয়ে কাজ চলছে। কেউ অনলাইনে প্রতারিত হলে পুলিশের সহায়তা নিতে পারেন।

Category: 1stpage, Scroll_Head_Line, লাইফ স্টাইল

About the Author ()

Leave a Reply