জাপানে বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের মধ্যে ভিডিও গেমস খেলা জনপ্রিয় হচ্ছে

| মার্চ 19, 2014 | 0 Comments

লাইফ স্টাইল: ভিডিও গেমস খেলাকে সাধারণত কিশোর ও তরুণদের উপযোগীই মনে করা হয়েছে এতদিন। কিন্তু সম্প্রতি জাপানের বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের মাঝেও ভিডিও গেমস জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তারা গেমস খেলা শুধু সময় কাটান তা নয়, বরং পাশাপাশি ব্যায়ামও করেন। বিস্তারিত খবর সম্পর্কে আমাদের চীন আন্তর্জাতিক বেতারের সম্পাদক পান সোংয়ের রিপোর্ট শুনুন।

জাপানের ইউকোহামায় অবস্থিত একটি “স্পোর্টস সেন্টারে” সাদা চুলওয়ালা একটি গ্রুপের বৃদ্ধবৃদ্ধারা উত্তেজিতভাবে গেমস খেলছেন। দৃশ্যটি কিছুটা অস্বাভাবিক। আসলে এই জায়গাটি কোনো স্পোর্টস সেন্টার নয়য়, বরং একটি বৃদ্ধ স্বাস্থ্যকেন্দ্র। প্রতিদিন এখানে ভিডিও গেমস খেলতে আসেন অনেক বৃদ্ধ-বৃদ্ধা। তারা হাত-পা নেড়ে গেমস খেলেন; মন ও শরীর উভয়ের চর্চা হয় তাতে। একজন প্রবীণ ব্যক্তি বললেন:

“এই খেলার মাধ্যমে মনের চাহিদা মেটার পাশাপাশি শরীরের চর্চাও হয়। আমি অবশ্য ভিডিও গেমস খেলি, নিজের মানসিক ক্ষমতা অটুট রাখার লক্ষ্যে।”

আরেকজন বললেন,

“খেলে আমি শরীরের ক্যালরি পোড়াতে পারছি কমই। খেয়ে খেয়ে আমি অনেক মোটাতাজা হয়েছি। আমার আরো বেশি ক্যালরি পোড়ানো দরকার।”

এক গবেষণায় দেখা গেছে, ভিডিও গেমস খেলার সময় মস্তিষ্কে রক্তের পরিমাণ বেড়ে যায়। এ ছাড়া যেসকল প্রবীণ লোক গেমস খেলেন, তাদের কগনিটিভ ডিসফাংশান রোগে আক্রান্ত হবার আশঙ্কা কমে যায়। শুধু জাপানি বৃদ্ধবৃদ্ধারাই ভিডিও গেমস খেলার কার্যকারিতা উপলব্ধি করেছেন তা নয়, অন্যান্য দেশেও বর্তমানে প্রবীণদের মাঝে ভিডিও গেমস জনপ্রিয় হচ্ছে। ভিডিও গেমস নির্মাতারাও তাদের পণ্যের বাজার সম্প্রসারণের ওপর নজর দিচ্ছেন। জাপানের আলোচ্য বৃদ্ধ স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে দেশটির বিখ্যাত ভিডিও গেমস নির্মাতা কোম্পানি ‘বানদাই হোল্ডিংসের’ গেমস খেলছেন প্রবীণরা। কোম্পানির একজন ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা বললেন,

“প্রবীণরা হচ্ছেন আমাদের অন্যতম টার্গেটগ্রুপ। বিশেষ করে, হবু প্রবীণরাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমরা তাদের জন্য এমন ভিডিও গেমস উদ্ভাবন করতে চাই, যা খেলে তারা একাধারে আনন্দ পাবেন এবং শরীরচর্চার উপকারিতাও পাবেন।”

গত বছরের জানুয়ারিতে জাপানের নিন্তেনদো কোম্পানি ঘোষণা করে যে, তারা মানুষের স্বাস্থ্যের সাথে সম্পর্কিত পণ্য উন্নয়নের ওপর গুরুত্ব দেবে। যদিও সে সিদ্ধান্ত তখন অনেকের কল্পনার বাইরে ছিল, কিন্তু বর্তমানে কোম্পানির দূরদৃষ্টির প্রশংসা করছেন অনেকেই। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০৫৫ সাল পর্যন্ত জাপানে ৬৫ বছর বয়সী প্রবীণের সংখ্যা মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেকে পরিণত হবে। এই বিশাল বাজারটি কোন গেমস উত্পাদনকারী প্রতিষ্ঠান উপেক্ষা করতে চাইবে?

Category: 1stpage, লাইফ স্টাইল

About the Author ()

Leave a Reply