বিদ্রোহী সিরিসা সাংসদরা নতুন দল গড়তে চান

| আগস্ট 22, 2015 | 0 Comments
0,,18663637_404,00

নতুন ‘গণ ঐক্য’ দলের নেতা পানাগিওটিস লাফাজানিস

ইউরো সংবাদ: গ্রিক প্রধানমন্ত্রী আলেক্সিস সিপ্রাস বৃহস্পতিবার পদত্যাগ করার পর এবার তাঁর সিরিসা দলের প্রায় ২৫ জন সাংসদ একটি নতুন দল গড়তে চান৷ এই ‘গণ ঐক্য’ দল সংসদের তৃতীয় বৃহত্তম গোষ্ঠী হবার ক্ষমতা রাখে৷

সাবেক জ্বালানি মন্ত্রী পানাগিওটিস লাফাজানিস হবেন নতুন ‘এলএই’ দলের নেতা৷ গ্রিক সংসদের আসনসংখ্যা ৩০০৷ তার মধ্যে বামপন্থি সিরিসা দলের রয়েছে ১২৪টি আসন; রক্ষণশীল ‘নেয়া ডেমোক্রাটিয়া’ বা নয়া গণতন্ত্র দলের ৭৬টি আসন; তার পরেই আসছে মধ্যমপন্থি ‘টো পোটামি’ দল এবং চরম দক্ষিণপন্থি ‘গোল্ডেন ডন’ বা ‘সোনার সকাল’ দল – যাদের ১৭টি করে আসন৷ সেই হিসেবে ‘গণ ঐক্য’ দল গঠিত হলে এবং তাদের অন্তত ২৫টি আসন থাকলে, তারা সংসদে তৃতীয় বৃহত্তম গোষ্ঠী হবে৷

বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ দুই কারণে৷ প্রথমত, বেইলআউট সংক্রান্ত ভোটে সিরিসা দলের যে পরিমাণ সদস্য বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন, তা-তে সিপ্রাস সরকারের সংখ্যাগরিষ্ঠতাই বিপন্ন হতে চলেছিল৷ সেটা বুঝেই সিপ্রাস – প্রত্যাশা মতো – পদত্যাগ করে নতুন মধ্যকালীন নির্বাচনে ভাগ্য পরীক্ষা করার পথ বেছে নিলেন৷ মাত্র সাত মাস প্রধানমন্ত্রী ছিলেন সিপ্রাস – এবং পদত্যগের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করার পরেও তাঁর জনপ্রিয়তা বিশেষ কমেনি; জনপ্রিয়তায় অন্য কোনো রাজনীতিকের তাঁর ধারে-কাছে আসার ক্ষমতা নেই৷ সেই হিসেবে ক্ষমতায় প্রত্যাবর্তনের ক্ষেত্রে সিপ্রাসের গুরুত্ব দেওয়ার মতো কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নেই৷

দ্বিতীয়ত, প্রেসিডেন্ট প্রোকোপিস পাভলোপুলস শুক্রবার সকালেই রক্ষণশীলদের নেতা ভ্যাঞ্জেলিস মাইমারাকিসকে ইমেল-এর মাধ্যমে সরকার গঠনের প্রচেষ্টা করার আহ্বান জানিয়েছেন – যদিও নেয়া ডেমোক্রাটিয়া দলের আসন মাত্র ৭৬টি এবং সহযোগী পাবার সম্ভাবনাও ক্ষীণ৷ মাইমারাকিস তিন দিন সময় পাবেন৷ তার পরে সরকারগঠনের সুযোগ যাবে পরবর্তী দলের কাছে৷ সেক্ষেত্রে ‘গণ ঐক্য’ দল গঠিত হবার সঙ্গে সঙ্গে অন্তত খাতাকলমে সকারগঠনের আহ্বান পেতে পারে!

সব মিলিয়ে আলেক্সিস সিপ্রাস যে পথ ও পন্থা বেছে নিয়েছেন, তা স্বদেশে বা বিদেশে শুধু প্রত্যাশিতই নয়, দৃশ্যত বাঞ্ছিতও বটে৷ সিপ্রাস তাঁর পদত্যাগ সংক্রান্ত টেলিভিশন ভাষণে জাতিকে বলেছেন: ‘‘আমি যা কিছু করেছি, সব সাফল্য বা অসাফল্য, আপনাদের রায়ের কাছে পেশ করার একটা গভীর নৈতিক ও রাজনৈতিক দায়িত্ব বোধ করছি৷” অপরদিকে গ্রিসের ইউরোপীয় পাওনাদাররা দৃশ্যত সিপ্রাসের পদক্ষেপে আদৌ বিস্মিত কিংবা বিড়ম্বিত নন – যদিও মুডি’জ ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি মধ্যকালীন নির্বাচনের ফলে ভবিষ্যতে বেইলআউট-এর অর্থ হস্তান্তর করায় বিলম্ব ঘটার ঝুঁকি দেখছে৷

বিদায়ী সরকারের কর্মকর্তারা বলছেন যে, নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ হলো ২০শে সেপ্টেম্বর৷

Category: 1stpage, Scroll_Head_Line, ইউরো সংবাদ, ইউরো সংবাদ, ইউরো-সংবাদ - Greece

About the Author ()

Leave a Reply